কেশবপুরে বিভিন্ন দাবীতে ৯ ফেব্রুয়ারী থেকে
১৫ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত এক সপ্তাহ ইট বিক্রয় বন্ধ

 

এনামুল কবির সবুজ স্টাফ রিপোর্টারঃ

যশোরের কেশবপুরে বিভিন্ন দাবীতে ৯ ফেব্রুয়ারী থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত আগামী এক সপ্তাহ ইট বিক্রয় বন্ধ করা রয়েছে। দাবী আদায় না হলে আগামী বছর থেকে ইটভাটায় ইট বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন ইটভাটা মালিক সমিতি।
কেশবপুর উপজেলা ইটভাটা মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আরমান গাজী, সহ-সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম জানান, সরকারি নির্দেশনার কারণে কোটি টাকা ব্যায় করে দেশের ড্রাম চিমনি ইটভাটার মালিকরা তাদের ইটভাটাগুলো জিগজাগ ভাটায় রূপান্তরিত করে। বর্তমানে শতকরা ৮০ ভাগ ভাটা ঝিকঝাক ভাটা। ২০১৩ সালের ইটভাটা নিয়ন্ত্রণ আইনের জিগজাগ ভাটা নিষিদ্ধ এলাকা দূরত্ব ১০০০ মিটার করা হয়। এই ধারার উল্লেখ করা হয় রেলপথ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ক্লিনিক, গবেষণা প্রতিষ্ঠান বা অনুরূপ কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে এর দূরত্ব রাখতে হবে। জনবহুল দেশে আইন কার্যকর হওয়া দুরূহ ব্যাপার। যে কারণে তারা নিষিদ্ধ এলাকা দূরত্ব ৬৫০ মিটার এর দাবি করে আসছেন। আইনের উপর ধরার কারণে পরিবেশ অধিদপ্তর ২০১৭ সাল থেকে ভাটার ছাড়পত্র বন্ধ রেখেছেন। যার ফলে ইটভাটার অভিযান চালিয়ে ইটভাটা ভেঙ্গে দিয়ে কোটি কোটি টাকার ক্ষতি করা হচ্ছে। এভাবে চললে ইট উৎপাদনে করতে তারা ব্যার্থ হবেন।
উল্লেখিত দাবী আদায়ের জন্য কেশবপুর সকল ইটভাটা ৯ ফেব্রুয়ারী থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত ইট বিক্রি বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন ইটভাটা মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ। দাবী আদায় না হলে আগামী বছর থেকে ইটভাটায় ইট বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন ইটভাটা মালিক সমিতি।