দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে। বঙ্গবন্ধু তনয়া জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আমরা পেয়েছি- স্বপ্নের পদ্মা সেতু, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। আমরা থেমে নেই। জননেত্রী শেখ হাসিনা থেমে নেই। স্বপ্ন দেখছেন স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার। স্বপ্ন দেখছেন উন্নত দেশ বিনির্মানের।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবার উপলব্ধি করেছেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে প্রয়োজন স্মার্ট নেতৃত্ব। প্রয়োজন তারুণ্য। তারই ধারাবাহিকতায় আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে স্মার্ট নেতৃত্বকে খুঁজে নেবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা। পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ তৈরিতে যেমন জননেত্রী শেখ হাসিনা থেমে নেই, ঠিক তেমনি সাহেদুল ইসলাম সাহেদ তাঁর পিতার ঠাকুরগাঁও নিয়ে অসম্পূর্ণ স্বপ্নগুলো পূরণে কাজ করে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত আস্তাভাজন সাহেদুল ইসলাম সাহেদের পিতা প্রয়াত খাদেমুল ইসলাম ছিলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং ঠাকুরগাঁও-১ আসনের তিনবারের সংসদ সদস্য।

সাহেদুল ইসলাম সাহেদ উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ থেকে। তারপর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সাহেদুল ইসলাম সাহেদকে জাপানে বাংলাদেশি হাইকমিশনের কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেন। সেখানে সাহেদুল ইসলাম সাহেদ জাপানের সাথে বাংলাদেশের কূটনীতিক সম্পর্ককে অটল রাখতে দিনরাত পরিশ্রম করে গেছেন । যার উদাহরণ জাপান এখনো আমাদের বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র হিসেবেই পরিচিত।

আওয়ামীলীকে মনে প্রাণে লালন করায় এবং বিএনপি ক্ষমতায় আসার ফলে সাহেদুল ইসলাম সাহেদকে ২০০১ সালে কানাডায় নির্বাসিত জীবনযাপন করতে হয়। তারপর আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে ২০১০ সালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগ দেন। ২০১১ সালে সচিব হিসেবে নিউইয়র্কে যোগদান করেন। ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তিনি বাংলাদেশে ফেরেন। তারপর ঠাকুরগাঁও জেলাকে নিয়ে তার বাবার অসম্পূর্ণ কাজগুলো সমাপ্ত করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। কাজ করতে চান প্রবীণদের সুপরামর্শ নিয়ে। নবীনদের সাথে নিয়ে ঠাকুরগাঁও গড়তে চান বাংলাদেশের প্রথম স্মার্ট জেলা।

শেকড়ের টানে প্রায়শই ফিরে আসেন তিনি। মা ও মাটির ভালোবাসা কখনোই ভুলবার নয় সাহেদুল ইসলাম সাহেদ। যে শহরের মাটিতে ঘুমিয়ে আছেন তার পিতা খাদেমুল ইসলাম একজন প্রকৃত দেশপ্রেমিক বীর মুক্তিযোদ্ধা । বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে এবং প্রয়াত খাদেমুল ইসলামের স্বপ্নের ঠাকুরগাঁও গড়তে কাজ করে যাচ্ছেন সাহেদুল ইসলাম সাহেদ । ইতিমধ্যে ঠাকুরগাঁও জেলার নবীন ও প্রবীণদের প্রিয় হয়ে উঠেছেন তিনি। প্রয়াত খাদেমুল ইসলামের আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা যেনো আবার প্রাণ ফিরে পেয়েছে সাহেদুল ইসলাম সাহেদের মধ্যে দিয়ে। কাজ করতে চান তরূণ সমাজকে সাথে নিয়ে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে স্মার্ট বাংলাদেশের উপকারিতা পৌঁছে দিতে মাঠ পর্যায়ে কাজ কর যাচ্ছেন সাহেদুল ইসলাম সাহেদ। স্মার্ট নাগরিক, স্মার্ট অর্থনীতি, স্মার্ট সরকার, স্মার্ট সমাজ, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার মূল ভিত্তি। আর হয়তো খুব বেশিদিন নয়, স্মার্ট বাংলাদেশের আলোয় আলোকি হবে – দেশের প্রতিটি গ্রাম কিংবা শহর। সাহেদুল ইসলাম সাহেদরা হবেন স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার সহযোদ্ধা। সাহেদুল ইসলাম সাহেদের হাত ধরেই তৈরি হবে- ঠাকুরগাঁও জেলায় স্মার্ট শহর, গ্রাম, রাস্তা,ঘাট, হাসপাতাল কিংবা স্মার্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও- ১ আসনের আশার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছেন সাহেদুল ইসলাম সাহেদ। ঠাকুরগাঁও জেলায় তরূণদের জন্য নতুন নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে যেনো সাহেদুল ইসলাম সাহেদের বিকল্প নেই। ঠাকুরগাঁও-১ আসনের লাখো লাখো মানুষ সাহেদুল ইসলাম সাহেদের চোখ দিয়েই স্বপ্ন দেখা শুরু করেছে।

লেখক- শিক্ষার্থী, ইংরেজি বিভাগ
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়,রংপুর