পাপুলের দুর্নীতির দায় আওয়ামী লীগের ওপর বর্তায় না : তথ্যমন্ত্রী

একেডি শাওন | ঢাকা

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়নদের মুখে দুর্নীতি নিয়ে মন্তব্য হাস্যকর।

আজ শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর শাহবাগে কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে ১৪তম আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব উদ্বোধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। বিশেষ অতিথি সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
সম্প্রতি কুয়েতের একটি আদালতে মানব ও অর্থ পাচারের মামলায় লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুলের সাজা হওয়ার পর বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীর মন্তব্য ‘পাপুলের সাজায় আওয়ামী লীগের দুর্নীতি আজ বিশ্বস্বীকৃত’ এর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ড. হাছান বলেন, বিএনপির দুর্নীতির কারণে তাদের আমলে দেশ পরপর পাঁচবার দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। যাদের আমলে দেশ পরপর চারবার একক ও একবার যুগ্মভাবে দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়, তাদের মুখে দুর্নীতি নিয়ে মন্তব্য হাস্যকর।

‘আর পাপুল একজন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য। তার দুর্নীতির দায় কোনোভাবেই আওয়ামী লীগের ওপর বর্তায় না’ বলেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, কুয়েতের আদালতে তার সাজা হয়েছে, বাংলাদেশেও দুদক এবিষয়ে তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

এর আগে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় শিশু চলচ্চিত্র উৎসব উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ ধরনের উৎসব শিশু-কিশোরদের মেধা, মনন ও দেশপ্রেমবোধে উৎসাহিত করে দেশীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের প্রতি মমতা জাগ্রত করতে অত্যন্ত সহায়ক।
চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়নে হাজার কোটি টাকার তহবিল ঘোষণা সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, নতুন সিনেমা হল নির্মাণ, পুরনো হল সংস্কার ও বন্ধ হয়ে যাওয়া সিনেমা হল চালু করার জন্য ব্যাংকের মাধ্যমে এই তহবিল থেকে সহজ ঋণ দেওয়া হবে।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, শিশু চলচ্চিত্র উৎসবটি শিশু-কিশোরদের পরিচালনায় আয়োজিত হচ্ছে, যা অত্যন্ত আনন্দের ও এটি তাদের সৃষ্টিশীলতার নজীর। তিনি এ সময় নিজের করোনা টিকা নেবার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন ও বলেন টিকা নেয়ার পর তার শরীরে কোনো বিরূপ প্রতিক্রিয়া নেই।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ ও উৎসব পরিচালক ফারিহা জান্নাত মীম যথাক্রমে জাতীয় পতাকা, উৎসবের কেন্দ্রীয় পতাকা ও চলতি উৎসবের পতাকা উত্তোলন, শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে ও প্রদীপ জ্বেলে উৎসব উদ্বোধন করেন। রবিবার থেকে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৮১টি দেশের প্রায় দেড় হাজার চলচ্চিত্র নিয়ে সপ্তাহব্যাপী এ আয়োজনে গণগ্রন্থাগার, জাতীয় জাদুঘর ও শিল্পকলা একাডেমিতে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকছে।