শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, “বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি পড়ানোর বিরোধীতাকারী ও জঙ্গিবাদের প্রশ্রয়দাতারা মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের ভিক্ষুক বানাতে চায়, দেশকে ভিক্ষুক বানাতে চায়। মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা কি বিজ্ঞান প্রযুক্তি পড়বে না?

তিনি বলেন, শুধু কি নামাজ পড়াবে আর নিজে একটি করে মাদ্রাসা তৈরি করবে? কিন্তু আমরা দেশকে ভিক্ষুকের দেশ থাকতে দিতে পারি না।”

সোমবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে স্বাধীনতা মাদ্রাসা শিক্ষক পরিষদ আয়োজিত শিক্ষক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। দীপু মনি বলেন, “যারা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিখতে দেবে না, তারা তো দেখি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বেশি ব্যবহার করে।

ফেইসবুকে মিথ্যাচার তারাই তো বেশিই করে। তাহলে প্রযুক্তি নেব (গ্রহণ করব) ইসলামবিরোধী কাজ করার জন্য? মিথ্যাচার করার জন্য? তারা কি ইসলামের সেবক? “মানুষ এক সময় হেঁটে, উটের পিঠে চড়ে হজ করতে যেত, এখন তো আমরা বিমানে যাই।

তাহলে কি বিমানে যাওয়া বন্ধ করে দেব? আমরা মোবাইল ব্যবহার বন্ধ করে দেব? পদ্মা সেতু ও মেট্রোরেলে উঠব না? আমার মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ডাক্তার হবে না? ইঞ্জিনিয়ার, বৈমানিক হবে না?”
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির যে জ্ঞান তা হঠাৎ করে এসে পড়েছে নাকি শিখতে হয়েছে? আল্লাহ প্রত্যেককে একটি সুপার কম্পিউটার (মস্তিষ্ক) দিয়েছে, সেটি কাজে লাগাব না? এইটি যে ব্যবহার করব না- এই কথা যারা বলে, তাদের চেয়ে বড় ইসলামের শত্রু আর হতে পারে না। আল্লাহ প্রথম কথা বলেছেন-পড়ো। আর এরা পড়তেই মানা করে, শিখতেই মানা করে।

“আমাদের নবীজি কোন হাত পছন্দ করেতেন? দাতার হাত পছন্দ করতেন। আর উনারা যা শেখাবার চেষ্টা করছেন- বিজ্ঞান প্রযুক্তি বন্ধ করে দিয়ে আমাদেরকে ভিক্ষুকের জাতিতে পরিণত করতে। আমরা বাঙ্গালিকে কখনও ভিক্ষুকের জাতি থাকতে দিতে পারি না।”