রাব্বি আহমেদ, বরগুনা জেলা প্রতিনিধি: বরগুনার সদর উপজেলার আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের বধুঠাকুরানী গ্রামের মোঃ নয়ন মল্লিকের স্কুল পড়ুয়া কন্যা নাসরিন (১৪) রবিবার দুপুর ২টার দিকে রহস্যজনক আত্মহত্যা করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নাসরিন ৮ম শ্রেণির ছাত্রী। বাবা জীবিকা নির্বাহের জন্য ঢাকায় রিস্কা চালায় মা নানা বাড়িতে থাকায় দাদীর নিকট ছিল নাসরিন। দুপুরের দাদি নাসরিনকে খাবার খেতে ডাকলে কোথাও খুঁজে না পেয়ে তার দাদির ঘর থেকেতার ছেলে নয়নের ঘরে গিয়ে নাতিকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে ডাক চিৎকার করলে পাশের মানুষ এসে নাসরিনকে নানিয়ে নাসরিনকে মৃত দেখতে পায়।

স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনায় নিয়ে যায়। আরো জানা যায় সদর উপজেলার ৬নং বুড়িরচর ইউনিয়নের কামরাবাদ গ্রামের সালাম সিকদারের পুত্র আরিফের সাথে দীর্ঘ এক বছর দরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল নাসরিনের। সম্প্রতি বিষয়টি দুই পরিবারের মধ্যে জানাজানি হয়, তাতেই বাধে বিপত্তি ছেলের বাবা নাসরিনকে না মানার কথা বলায় অভিমান করে আত্মহত্যা করে নাসরিন। নাসরিনের মোবাইল ফোনে আরিফের প্রেরিত বেশ কয়েকটি বার্তা পাওয়া যায়।

বার্তায় দেখা যায়, আল আমিন নাসরিনকে পাগলামি করতে নিষেধ করছে। নাসরিনকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথাও বলেছে আরিফ। নাসরিনের বইয়ের ভিতরে দুটি চিঠি পাওয়া গেছে, চিঠিতে নাসরিনের হতে লেখা কিছু ভালোবাসার কথা লেখা রয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী কর্মকর্তা এস আই হারুন বলেন, ফোন পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে ভিকটিমের লাশ উদ্ধার করি। বরগুনা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ কে এম তরিকুল ইসলাম বলেন, মেয়ে পক্ষে অভিযোগ করছে থানায় একটি আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলা দায়ের হচ্ছে। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।