মোঃ ফারুক হোসেন, খাগড়াছড়িঃ

সবাইকে অবাক করে দেওয়া খাগড়াছড়ির পাহাড়ের বুকে থোকায় থোকায় ঝুলছে রঙিন আম। প্রায় ১২০টি গাছে এ আম ধরেছে। এটি সাধারণ কোনো আম নয়। বিশ্বের সবচেয়ে দামি আমের খেতাব পাওয়া মিয়াজাকি বা ‘সূর্যডিম’ আম।

নতুন নতুন কৃষিজাত উদ্ভাবন যেমন সমৃদ্ধ করছে কৃষিখাতকে তেমনি পাহাড়ের মাটিতে বিদেশি ফল চাষ নতুন আশার আলো সঞ্চার করছে। কৃষিতে নতুন চমক ‘সূর্যডিম’ জাতের আম। এটিকে বিশ্বের সবচেয়ে দামি আম বলা হচ্ছে। এ আম খাগড়াছড়িতে প্রথমবারের মতো চাষ করে সফলতা পেয়েছেন এক কৃষক। পাহাড়ি ঢালু জমিতে মিয়াজাকি আমের সাফল্যে এখন বিস্মিত কৃষি বিভাগসহ সবাই। জাপানের এই আম বাগানটি খাগড়াছড়ি জেলা সদর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে মহালছড়ি উপজেলার ধুমনিঘাট এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছে। ২০১৬ ও ১৭ সালে মিয়াজাকি আমের চাষাবাদ শুরু করা এ এলাকায়। মিয়াজাকির অন্য নাম সূর্যের ডিম বা এগ অব সান।

এ বিষয়ে ওই আমচাষি জানান, শখের বসে অল্প কয়েকটি সূর্যডিম গাছের চারা সংগ্রহ করেন তিনি। পাহাড়ের মাটি ও আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারায় পরবর্তী সময়ে চারার সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়। এখন প্রত্যেকটি গাছে ১০ থেকে ১২ কেজি করে ফল হয়েছে। প্রতিকেজি ৬০০ টাকা করে পাইকারী বিক্রি করছেন বলেও জানান তিনি।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সূর্যডিম বা মিয়াজাকি হলো জাপানিজ আম। বিশ্ববাজারে এটি ‘রেড ম্যাংগো’ নামে পরিচিত। এটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি আম। আমটির স্বাদ অন্য আমের চেয়ে প্রায় ১৫ গুণ বেশি। আমটি খেতে খুবই মিষ্টি। আমটির গড় ওজন প্রায় ৭০০ গ্রামের মতো। বিশ্ববাজারে এর দাম প্রায় ৭০ ডলার বা ৬ হাজার টাকা। সে হিসেবে প্রতি ১০ গ্রাম আমের দাম ১ ডলারের মতো। অনেক কৃষক নতুন এ জাতের আম চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। খাগড়াছড়ি হর্টিকালচার সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে প্রচলিত জাতের পাশাপাশি বিদেশি জাতের আম চাষাবাদে কৃষকরা আগ্রহী হচ্ছেন। খাগড়াছড়িতে প্রথমবারের মতো জাপানি আম মিয়াজাকির চাষাবাদ শুরু হয়েছে।

এটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি আম হিসেবে বিবেচিত। পাহাড়ের আবহাওয়ায় এটি চাষাবাদ উপযোগী। পরবর্তীতে হর্টিকালচার সেন্টারের মাধ্যমে এটি কৃষক পর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হবে।