মহিউদ্দিন সানি।। খুলনা জেলার ডুমুরিয়া থেকে রিপা সুলতানা ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকায় মাঝারি একটি গরু কিনেছেন। তার মতোই নড়াইল জেলার কালিয়া থেকে স্ব-পরিবারে গরু কিনতে এসেছেন সিদ্দিকুর রহমান। তিনি ১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকার মধ্যে একটি মাঝারি গরু খুজছেন।

শুক্রবার রূপদিয়া গরু হাটে গিয়ে দেখা যায়, কিছুক্ষণ পর পর আসছে গরুবাহী,পিকআপ,নছিমন ও ট্রাক। গরু দেখতে ভিড় করছেন ক্রেতা ও দর্শনার্থীরা। মাঝারি বা তিন মণের বেশি মাংস আছে এমন গরুর দাম বিক্রেতারা চাইছেন এক লাখ ২০ হাজার টাকার ওপর। এছাড়া দুই মণ মাংস হবে এমন ছোট গরুর দাম চাওয়া হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা। বিক্রেতাদের অভিযোগ, ক্রেতারা আশানুরূপ দাম বলছেন না। তবে ক্রেতারা বলছেন, গরুর তুলনায় বেশি দাম চাইছেন বিক্রেতারা। প্রতিটি গরুতে অন্তত ২০ হাজার টাকা বেশি চাইছেন তারা।
পাশের ইউনিয়ন কঁচুয়া থেকে গরু ব্যবসায়ী মেহেদী হাসান ১৭ টি গরু এনেছেন। মাঝারি সাইজের ৭ টি গরু হাটে আসার কিছু সময়ের মধ্যে বিক্রি হলেও বড় গরুগুলোর ভালো দাম নেই।
মেহেদী হাসান জানান, আমি দুপুরে গরুগুলো হাটে এনেছি। প্রতিটিতে তিন মণের বেশি মাংস আছে। মাঝারি সাইজের গরুগুলো এক লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। বড় গরুগুলোর দাম চাচ্ছি দেড় থেকে ২ লক্ষ টাকা। তবে বড় গরুর ক্রেতা নেই।
গরু ছাড়াও হাটে আছে ছাগল ও ভেড়া। বাজারে যে দামে ছাগলের মাংস পাওয়া যায় সেই দামই হাঁকছেন বিক্রেতারা।
মনিরামপুরের জয়পুর থেকে বড় গরু এনেছেন কামাল হোসেন। সাদা রংয়ের গরুটির ওজন হবে প্রায় ১৬ মণ।
কামাল হোসেন বলেন, এই গরুর নাম ট্রাক্টর।এখনো পযর্ন্ত এই হাটের সবথেকে বড় গরু এটি। দাম চাচ্ছি ৬ লক্ষ টাকা। ক্রেতারা দাম বলছে ৩ লক্ষ ৫০হাজার টাকা। ধলিরগাতি থেকে কালো রংয়ের আরও একটি বড় গরু এনেছেন আলতাফ হোসেন। গরুটির দাম সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা চাচ্ছেন তিনি। গরুটির দাম উঠছে সর্বোচ্চ ৩ লক্ষ টাকা।
জিরাট গ্রামের বোরহান উদ্দিন দুটি মাঝারি সাইজের গরু এনেছেন। একটু বেশি করে দাম চাচ্ছেন তিনি। ক্রেতারা ভালোই দাম বলছেন। বোরহান উদ্দিন বলেন, বাজারে মাঝারি গরুর দাম ভালো। আমি ভালো দাম পেতে অপেক্ষা করছি।
নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজু আহম্মেদ বলেন, আমাদের হাটে খাজনা কম।আজ ক্রেতা বিক্রেতা বেশি। এক ঘণ্টায় ২০-৩০টা গরুর হাসিল হচ্ছে। হাট ঈদের দিন সকাল পযর্ন্ত চলবে। ক্রেতা ও বিক্রেতা আরও বাড়বে। শুক্র ও শনিবার অধিকাংশ কোরবানির পশু বিক্রি হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।