১ থেকে ১২তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রায় আড়াই হাজার চাকরিপ্রার্থীকে নিয়োগের বিষয়ে দেয়া রায়ের বিপক্ষে আপিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। ফলে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগে গণবিজ্ঞপ্তির ফল প্রকাশের কাজ আরও পিছিয়ে গেল।
বৃহস্পতিবার (১০ জুন) দুপুরে এনটিআরসিএ’র সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
 
এনটিআরসিএ কর্তৃক ১ থেকে ১২তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রায় আড়াই হাজার চাকরিপ্রার্থী যারা আদালত অবমাননার মামলা করেছেন, তাদের বিষয়ে রায় দিয়েছেন আদালত। রিটকারীদের আইনজীবীরা বলছেন, এ প্রার্থীদের এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সুপারিশ করতে এনটিআরসিএর প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে সুপারিশ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
 
 
এদিকে এনটিআরসিএর কর্মকর্তারা বলছেন, এ বিষয়ে ২০১৭ ১৪ ডিসেম্বর হাইকোর্ট একটি রায় দিয়েছিলেন। সেই রায়ের একটি অংশে বলা ছিল, এনটিআরসিএকে রিটকারী ও অন্যান্য আবেদনকারীদের অর্জিত সনদ ও নিয়োগের জাতীয় মেধাতালিকা অনুসরণ করে শূন্যপদে নিয়োগ সুপারিশ করতে হবে। সে রায় ৪ সপ্তাহের মধ্যে বাস্তবায়নের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
 
 
তারা বলছেন, সে রায় অনুসারেই এনটিআরসিএ চলমান ৩য় চক্রে ও ২য় চক্রে শিক্ষক নিয়োগ সুপারিশ করেছে। তাই, আদালত অবমাননা হয়নি।
 
তারা আরও বলেন, ১ থেকে ১২তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রায় আড়াই হাজার প্রার্থীকে নিয়োগের যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তার বিরুদ্ধে আপিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর ফলে গণবিজ্ঞপ্তির রেজাল্ট প্রজাশের কাজ পিছিয়ে যাবে। আপিলের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত রেজাল্ট প্রকাশ করা সম্ভব হবে না।