বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশব (বিপিএসসি) এবার প্রতি বছর একটি করে বিসিএস পরীক্ষার সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার উদ্যোগ নিয়েছে। নভেম্বর মাসে যে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে তাতে থাকবে প্রিলিমিনারি, লিখিত, মৌখিক পরীক্ষা ও ফলাফলের সম্ভাব্য মাস।

দেশের বিভিন্ন গণ্যমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, বর্তমানে চলমান সব পরীক্ষাও আগামী ছয় মাসের মধ্যে শেষ করার চেষ্টা চালাচ্ছে সংস্থাটি। উত্তরপত্র মূল্যায়নে দীর্ঘসূত্রতা কমাতে পরীক্ষকদের জন্যও আসছে নতুন নির্দেশনা। চেষ্টা করা হচ্ছে ভুলভ্রান্তি কমানোর।

মৌখিক পরীক্ষার জন্য তৈরি হচ্ছে নতুন রূপরেখা। সিলেবাসেও আসছে পরিবর্তন। পিএসসির চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন গণমাধ্যমকে বলেন, এক বছরের মধ্যে বিসিএস পরীক্ষা সম্পন্ন করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৪৩তম বিসিএস শুরু করার প্রস্তুতি থাকলেও করোনার কারণে সেটি সম্ভব হয়নি। ৪৪তম বিসিএসের ক্ষেত্রে একই সমস্যা বিরাজমান ছিল। সে কারণে ৪৫তম বিসিএসে সেই লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হয়েছে।

এ পরীক্ষায় প্রশ্ন, সিলেবাসে পরিবর্তন আনার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, প্রতি বছর নভেম্বর মাসে বিসিএস পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। বিজ্ঞপ্তিতে প্রিলিমিনারি, লিখিত, মৌখিক পরীক্ষা ও ফলাফল কোন মাসে প্রকাশ করা হবে তার সম্ভাব্য মাস উল্লেখ থাকবে।

পরীক্ষকদের মাধ্যমে খাতা মূল্যায়ন করা হবে দ্রুততম সময়ে। কোনো ধাপে বিলম্ব করা হবে না। মৌখিক পরীক্ষা আরও মানসম্মত করা হবে। তৈরি করা হবে মৌখিক পরীক্ষার একটি মডেল রূপরেখা।