রানি এলিজাবেথের প্রয়াণের পর ব্রিটেনের সিংহাসনে বসেছেন তাঁর ছেলে চার্লস। ইংল্যান্ডের রাজপাট এখন রাজা চার্লসের হাতে। গত বছর সিংহাসনে বসলেও সদ্য রাজা হিসাবে সিংহাসনে অভিষিক্ত হলেন চার্লস। উইন্ডসর রাজপ্রাসাদে রাজা চার্লসের সেই রাজ্যাভিষেকের অনুষ্ঠানে ডাক পেয়েছিলেন বলিউড অভিনেত্রী সোনম কাপূর।

রাজা চার্লসের অভিষেকের অনুষ্ঠানে কমনওয়েলথ ভার্চুয়াল কয়্যারে যোগ দেন অভিনেত্রী। সেই অনুষ্ঠানেই সোনমের কাণ্ডকারখানা দেখে মাথা হেঁট ভারতীয় নেটাগরিকদের। সমাজমাধ্যমের পাতায় স্পষ্ট তার ছাপ।

পোশাকশিল্পী অনামিকা খন্না ও এমিলিয়া উইকস্টেডের বানানো পোশাক পরে করোনেশন কনসার্ট অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন সোনম। মঞ্চে উঠে মাইক হাতে নিয়ে সোনম বলেন, ‘‘আমাদের কমনওয়েলথ একতার প্রতীক। একসঙ্গে আমরা গোটা দুনিয়ার এক-তৃতীয়াংশ জনগণ, বিশ্বের তিন ভাগের এক ভাগ জলভাগ আমাদের, চার ভাগের এক ভাগ স্থলভাগে আমরাই বসবাস করি। আমাদের প্রত্যেকের মধ্যেই বিশেষত্ব আছে। তবে, আমরা এক হয়ে উঠে দাঁড়াই।

ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে, বৈচিত্র ও মূলবোধের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে শান্তিপূর্ণ ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার জন্য আমরা বদ্ধপরিকর। এমন এক ভবিষ্যৎ, যেখানে সবার মতামত সমান ভাবে মূল্যবান।’’ সোনমের এই বক্তব্যের ভিডিয়ো সমাজমাধ্যমের পাতায় ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয় সমালোচনার ঝড়। অনেকের মতে, ‘‘এটা ভীষণ লজ্জার! এমন একটা আদ্যোপান্ত সেকেলে অনুষ্ঠানের হাজির থাকাই লজ্জার, তার উপরে আবার এমন একটা বক্তব্য!’’ অনেকের দাবি, ‘‘এটা তো আন্তর্জাতিক লজ্জা! পঞ্চম শ্রেণির পড়ুয়ারা এর থেকে ভাল কথা বলতে পারে।’’

২০১৮ সালে ব্যবসায়ী আনন্দ আহুজার সঙ্গে সাত পাক ঘোরেন সোনম। আনন্দ লন্ডন-নিবাসী হওয়ায় বিয়ের পর থেকে সেখানে যাতায়াত অনেক বেড়েছে অভিনেত্রীর। অন্তঃসত্ত্বা অবস্থাতেও অনেকটা সময় লন্ডনেই কাটিয়েছেন সোনম।

সেই সূত্রেই ইংল্যান্ডের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান চাক্ষুষ করার ডাক পেয়েছিলেন অভিনেত্রী। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিতের তালিকায় ছিলেন টম ক্রুজ, কেটি পেরি, লায়োনেল রিচির মতো হলিউডের বড় বড় তারকারাও।