শনিবার মধ্যরাতে হ্যাক করা হল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির টুইটার অ্যাকাউন্ট। এরপর সেই অ্যাকাউন্ট থেকে লেখা হল, “দেশে (ভারতে) বৈধতা পাচ্ছে বিট কয়েন। সরকার ৫০০ বিট কয়েন কিনেছে। দেশবাসীর মধ্যে তা ভাগ করে দেওয়া হবে।”

মুহূর্তেই মোদির টুইটার অ্যাকাউন্টের সেই স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়ে যায়। জোর চর্চা হতে শুরু করে নেটমাধ্যমে। কটাক্ষও ভেসে আসতে থাকে। তড়িঘড়ি আসরে নামেন সাইবার বিশেষজ্ঞরা। দ্রুততম সময়ের মধ্যে নিশ্চিত করা হয় অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা।

ভারতীয় পিএমও- এর পক্ষ থেকে টুইট করে লেখা হয়, “অল্প সময়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির টুইটার অ্যাকাউন্টের সঙ্গে আপস করতে হয়েছে। এরপরই অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়। টুইটার কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে ওই অ্যাকাউন্ট থেকে যেসব টুইট করা হয়েছে, তাকে গুরুত্ব দেওয়ার প্রয়োজন নেই।”
অ্যাকাউন্ট ফিরে পাওয়ার পর ওই সময়ের মধ্যে করা বেশিরভাগ টুইট মুছে দেওয়া হয়। কিন্তু ততক্ষণে ওই সব টুইটের স্ক্রিনশট ঘুরতে শুরু করেছে নেটমাধ্যমে। ‘হ্যাশট্যাগ হ্যাকড’-ও ট্রেন্ডিং হতে শুরু করে।

রবিবার সকালে এই প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত জানা যায়নি, মোদির টুইটার হ্যাক করার পিছনে কারা রয়েছে। তবে তদন্ত চলছে। সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে, ব্লুমবার্গ, আনন্দবাজার