কেশবপুর সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের ভয়ঙ্কর এক নাম সুদ’খোর আরিফ কেশবপুর হাসপাতালের পুরুষ ওয়াডের ৩১ নং বেডে চিকিৎসাধীন জ্ঞানহীন মারুফ হোসেন,তার অবস্থা আশংকাজনক।

কেশবপুরে ২নং সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নে চিংড়া গ্রামের সুদখোর আরিফ হোসেনের নির্যাতনের শিকার হয়ে শেখ পুরা গ্রামের মারুফ হোসেন হাসপাতালের পুরুষ ওয়াডের ৩১ নং বেডে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। তার অবস্থা আশংকাজনক ।

১৬ হাজার টাকা নিয়ে ৩৬ হাজার টাকা লাভ(সুদ) দিয়েও মুক্তি পাচ্ছেনা মারুফ হোসেন।
কেশবপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হতদরিদ্র কৃষক মারুফ হোসেনের স্বজনদের সাথে গতকাল আলাপকালে তার স্ত্রী আসমা খাতুন (২৮) বলেন তার স্বামী সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের শেখপুরা গ্রামের সোহরাফ দফাদারের পুত্র মারুফ হোসেন (৩৫)।

সে ইটভাটার শ্রমিক ও দুই সন্তানের জনক। গত ৬ মাস পূর্বে চিংড়া গ্রামের নবু হোসেনের পুত্র সুদখোর আরিফ হোসেনের নিকট হতে সুদে ১৬ হাজার টাকা গ্রহন করে। গত ৬ মাসে মারুফ হোসেন তাকে ৩৬ হাজার টাকা পরিশোধ করে। তারপরেও সুদখোর আরিফ হোসেন দীর্ঘদিন আরো ৩০ হাজার টাকা দাবী করে আসছে।

হতদরিদ্র কৃষক মারুফ হোসেন তার চাহিদা মতো টাকা দিতে না পারায় (৬ জুন) রাতে মারুফ হোসেনকে তুলে তার বাড়িতে নিয়ে যায় এবং প্রথমে তাকে শারীরিক ভাবে প্রচুর নির্যাতন করে। এক পর্যায় তার মুখে গামছা ঢুকিয়ে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বেপরোয়া নির্যাতন করতে থাকে।


এসময় তার স্ত্রী আসমা খাতুন রাত ১১ টায় তাকে খুজতে তার বাড়িতে যেয়ে তার স্বামীর মৃত্যুপ্রায় অবস্থায় দেখে তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে কেশবপুর হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। তার স্ত্রী আরো জানায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করার পর গত ২০ ঘন্টা সময় পার হয়ে গেলেও তার এখনো জ্ঞান ফেরেনি।

ঐ অবস্থায় মঙ্গলবার সকালে যশোর কুইন্স হাসপাতালে নিয়ে তার মাথার সিডি স্কিন করা হয়েছে তাতে তার রিপোর্ট ভালো না। তারা খুব গরীব মানুষ টাকার অভাবে উন্নত চিকিৎসা সেবা দিতে ব্যার্থ হচ্ছে।


কেশবপুর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জানান তার মাথার আঘাতটা খুব মারাত্বক হওয়া ৪৮ ঘন্টা না যাওয়া পযন্ত ঠিক বলা যচ্ছেনা।

সাগরদাঁড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত বলেন আরিফ হোসেন একজন বিশিষ্ট সুদখোর। সুদের টাকা আদায় করতে যেয়ে তাকে প্রচুর নির্যাতন করা হয়েছে।

৮নং ওয়াডের ইউপি সদস্য (মেম্বার)আব্দুস সবুর শেখ বলেন ঘটনাটি ঘৃণিত এবং খুব দুঃখজনক, তার অবস্থা আশংকাজনক। তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।