আসন্ন রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আবারও ৫ নং ওয়ার্ড থেকে লাটিম প্রতীকে কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন কামরুজ্জামান কামরু।তিনি গত তিন বারের সফল কাউন্সিলর।এবারো ওয়ার্ডবাসী তাঁকে নির্বাচিত করবেন বলে শতভাগ আশাবাদী তিনি।

তিনবারের অর্থাৎ ১৫ বছরে একটি অবহেলিত ওয়ার্ডকে তিনি উন্নয়নের উচ্চ শিখরে পৌছিয়ে দিয়েছেন।এই ১৫ বছরের অক্লান্ত পরিশ্রম করে নাগরিক সেবা ওয়ার্ডবাসীর দোরগোড়ায় পৌছিয়ে দিয়েছেন তিনি।তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব তিনি শতভাগ পালন করেছেন।

গতকাল মঙ্গলবার (১৩ জুন) রাতে সাংবাদিকদের এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

রাসিকের ৫ নং ওয়ার্ডের জনপ্রিয় বর্তমান কাউন্সিলর কামরুজ্জামান কামরু এসময় বলেন, ২০১৮ সালে ৩০ জুলাই অনেক আশা প্রত্যাশা নিয়ে ৫ নং ওয়ার্ডের সিটি সেবার দায়িত্ব আমাকে অর্পণ করেছিলো ওয়ার্ডবাসী।আমি সেই দায়িত্ব ও ওয়ার্ডবাসীর আকাঙ্খা এবং প্রত্যাশার সর্বোচ্চ সম্মান দিয়ে, দিন রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে, সিটি সেবা সমূহ ওয়ার্ডবাসীর দোরগোড়ায় পৌছিয়ে দেওয়ার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা করেছি।যাহার ফলশ্রুতিতে সকল প্রকার কার্যক্রম ও উন্নয়ন দৃশ্যমান।ছাত্র-ছাত্রীদের উৎসাহিত করণ, ছাত্র ও যুবদের ক্রীড়ায় আকৃষ্টকরণ, বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদির মাধ্যমে ওয়ার্ডবাসীকে সম্মান প্রদান সহ যাবতীয় কার্যক্রম অত্র ওয়ার্ডে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে যাহা স্মরণীয় ও দৃশ্যমান।যাহা অন্যান্য ওয়ার্ডের জন্য অনুস্মরণীয় ও অনুকরণীয়।সিটি করপোরেশনের ৩০টি ওয়ার্ডের মধ্যে সর্বোচ্চ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ওয়ার্ড হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি আরও বলেন, এবারের সিটি নির্বাচন অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।এবারের নির্বাচনের পরে সিটিতে বৃহৎ অবকাঠামো উন্নয়নসহ কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।সেক্ষেত্রে প্রতিটি ওয়ার্ডের ন্যায় ৫ নং ওয়ার্ডেও দক্ষ, যোগ্য, অভিজ্ঞ, পরিশ্রমী, কাউন্সিলর নির্বাচিত করা সম্মানিত ওয়ার্ডবাসীর নিকট কাম্য।কারণ দক্ষ কারিগরই তৈরি করে সুনিপুণ বস্তু।আগামী নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ভাই আবারও মেয়র হলে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।রাজশাহী সিটির উন্নয়ন ‘দৃশ্যমান, এবার হবে কর্মসংস্থান’ এই স্লোগানে এগিয়ে যাচ্ছে রাজশাহী।বাস্তবায়িত হবে নগরবাসীর স্বপ্ন।উন্নয়নের স্বার্থে আবারও নৌকা প্রতীকের লিটন ভাইকে নির্বাচিত করার আহবান জানাচ্ছি।তিনি নির্বাচিত হলে প্রতিটি ওয়ার্ডে অভূতপূর্ব উন্নয়নসহ প্রতিটি ওয়ার্ডের বেকার সমস্যা সমাধান হবে।আমরা আবারও তাঁর উন্নয়নের সঙ্গে কাজ করতে চাই।

সাক্ষাৎকালে তিনি আরও বলেন, আমি এবার নির্বাচিত হলে, ওয়ার্ডে স্থায়ী কার্যালয়, কমিউনিটি সেন্টার, লাইব্রেরি, মিনি শিশু পার্ক, পুকুর সংরক্ষণ, খেলার মাঠ তৈরি, কমিউনিটি ক্লিনিক, প্রশস্থ রাস্তা নির্মাণ, মসজিদ মাদ্রাসার প্রয়োজনীয় উন্নয়ন, প্রান্তিক ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবন মান উন্নয়ন এবং সর্বোপরি ওয়ার্ডের ছাত্র যুবাদের কর্মসংস্থানের উদ্যোগ গ্রহণ কার্যক্রমে ব্যাপক এবং দক্ষতার সহিত ভুমিকা রাখবো।

এছাড়াও ওয়ার্ডের সুনাম ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখা এবং আগামীতে বৃহৎ উন্নয়ন আদায়ের লক্ষে ২১ জুন নির্বাচনে আমাকে আপনাদের ওয়ার্ডের সেবক হিসেবে ভোট প্রদান করবেন বলে আমি শতভাগ আশাবাদী।