সম্প্রতি আগাম নির্বাচনের দাবিতে রাজধানী ইসলামাবাদের উদ্দেশ্য লং মার্চ শুরু করে পাকিস্তান-তেহরিক-ই-ইনসাফ। কিন্তু লং মার্চ চলাকালে দলটির চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান গুলিবিদ্ধ হন। এরপর এই পদক্ষেপ স্থগিত থাকলেও আবারও শুরু হতে যাচ্ছে ২৬ নভেম্বর।

তবে আবারও হামলার ঝুঁকি সত্ত্বেও লং মার্চে যোগ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক এই ক্রিকেটার। খবর জিও নিউজের। এর আগে গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বরাত দিয়ে ইসলামাবাদ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জানান, ইমরান খানের ওপর ফের হামলার আশঙ্কা রয়েছে। তবে এই শঙ্কা সত্ত্বেও রাওয়াল পিন্ডিতে পৌঁছাবেন তিনি।

নিজ বাসভবন থেকে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জানি আমার জীবন হুমকির মুখে রয়েছে। আরও একটি হামলা হতে পারে। তবে তা উপেক্ষা করে আমি রাওয়ালপিন্ডি যাবো।
তিনি বলেন, আমার পা খুব শিগগির ঠিক হবে না। তাই এই অবস্থাতেই আমি লং মার্চের নেতৃত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

পরবর্তী পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে পিটিআই প্রধান বলেন, এ সম্পর্কিত কৌশল দ্রুত প্রকাশ করা হবে। বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলে চলমান লংমার্চে নেতৃত্ব দেওয়ার সময় ইমরান খানের গাড়িবহরে গুলি চালানো হয়। এতে তিনিসহ আরও ১১ জন গুলিবিদ্ধ হন। এরপর লং মার্চ স্থগিত করা হয়।

কয়েকদিন আগে বিচারপতি আমের ফারুক গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বলেন ইমরান খানকে হত্যার উদ্দেশ্য ফের হামলা চালানো হতে পারে।

বিচারপতি ফারুক পিটিআইকে ইসলামাবাদে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে একটি নতুন আবেদন জমা দিতে বলেছেন। তাছাড়া মিছিলকারীরা শহরে পৌঁছালে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।